সাইবার জগৎ:-পর্নোগ্রাফি ও অশ্লীলতার অপরাধ

মেগাসিটি রাজধানী নয়, কোন বিভাগীয় শহর, জেলা শহর এমনকি উপজেলা সদরও নয়; উত্তরাঞ্চলের একটি নিভৃত পল্লী গ্রামের এক কিশোরীর কাহিনী এটি। এই গ্রামের সুরভী নামের মেয়েটি কলেজে পড়ে। দেশের হাজারো মেয়ের মতো সুরভীও একটি সেলফোন ব্যবহার করে। মধ্যপ্রাচ্যে চাকুরিরত এক মামা তাকে একটি সুন্দর মোবাইল সেট উপহার দিয়েছে। এই মোবাইল সেটে ইন্টারনেট সুবিধা রয়েছে। উৎসুক সুরভী একদিন সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেইসবুকে একটি একাউন্ট খোলে। একাউন্টে কিছু ছবিও আপলোড করে সে। নিঃসন্দেহে এই সব ছবি ছিল রুচি সম্মত ও শ্লীল। সুরভীর বন্ধুদের তালিকা ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে। সে দেশ বিদেশের অনেক ছেলেমেয়ের সাথে মনের ভাব প্রকাশ করছে। নিজেকে অন্যের সামনে তুলে ধরছে, অন্যদের সম্পর্কেও জানছে। পরিচিত দুনিয়ার বদ্ধ জগতের চেয়ে ফেইসবুক তার কাছে একটি অনন্ত জগত খুলে দিয়েছে।

একদিন ফেইসবুকের বন্ধুদের তালিকা খুঁজতে গিয়ে সুরভী দেখল তারই নাম, ঠিকানা, পরিচিতি এবং ছবি ব্যবহার করে কে যেন ফেইসবুকে অন্য একটি একাউন্ট খুলেছে। একাউন্টের প্রোফাইল ছবিটিও তারই। তবে ভয়ংকর বিষয় হল তার ছবিটি নগ্ন। খুব কাছে থেকে দেখে বোঝা গেল সুরভীর নিজ একাউন্টের আপলোড করা ছবি থেকে একটি ছবি নিয়ে ছবির মাথাটি কেটে অন্য একটি নগ্ন ছবির সাথে জোড়া দেওয়া হয়েছে। এই ভাবে সুরভীর নামে খোলা এই নতুন একাউন্টে বহু সংখ্যক নগ্ন ছবি আপলোড করা হয়েছে যেগুলোর অধিকাংশই সুরভীর ছবির সাথে অন্য ছবির সংযোজন-বিয়োজন বা অশ্লীল বিকৃতি।

এর কয়েক মাস পরের ঘটনা। সুরভীর গ্রামের বাড়ির একটি বাজারের কম্পিউটারের দোকানে সুরভীর নগ্ন ছবি প্রদর্শিত হতে লাগল। কম্পিউটারের দোকান থেকে তা চলে গেল স্থানীয় যুবকদের মোবাইল ফোনে। কেউ কেউ এই ছবি প্রিন্ট করে সুরভীর গ্রামে নিয়ে গেল। সারা গ্রামে সুরভীর নগ্নতা ছড়িয়ে পড়ল। সুরভীর সহপাঠী, খেলার সাথী, বন্ধ-বান্ধব, গ্রামবাসী আত্মীয়-স্বজন, সবার কাছে সুরভীর নগ্ন ছবির সমালোচনা। ফেইসবুকসহ সাইবার জগতে কোটি কোটি কিশোরীর কোটি কোটি নগ্ন ছবি পাওয়া যায়। কিন্তু সেই সব ছবির নগ্নতায় গ্রামের কারো ঔৎসুক্য নেই, সমালোচনা নেই। সবাই হুমড়ী খেয়ে পড়ল সুরভীর কথিত নগ্ন ছবিটির উপর। সুরভীর জীবন অতিষ্ট হয়ে উঠল। সুরভী আত্মহত্যা থেকে এখন খুব সামান্য দূরে।

ঠিক এমনি এক পর্যায়ে সুরভীর মামা, আমার এক পুরাতন বন্ধু, আমাকে ফোন দিয়ে তার ভাগনীর দুরবস্থার খবর জানিয়ে তার প্রতিকারের জন্য সাহায্য চাইল। আমি স্থানীয় থানায় ফোন করলাম। থানার অফিসারগণ সুরভীর গ্রামের বাজারের আলোচিত কম্পিউটারের দোকানে গিয়ে তল্লাশী চালাল। সুরভীর কথিত কিছু নগ্ন ছবির প্রিন্টের কপি ও সফ্‌ট কপি উদ্ধার করা হল। কতিপয় যুবক দৌড়ের উপর থাকল। তবে তারা এই অপরাধ-আচরণ শৃঙ্খলের সর্ব নিম্ন স্তরের। আসল অপরাধী থাকল পুলিশের ধরা ছোঁয়ার বাইরে। এমনকি সেই কথিত ফেইসবুক একাউন্টটিও চালু রইল।

Check Also

খাসির গোস্তের কেজি ৮০০ টাকা আর পানির কেজিও ৮০০ টাকা

খাসির মাংসের কেজি ৮০০ টাকা আর পানির কেজিও ৮০০ টাকা ! ভিডিও

আমরা হয়তো খাসির গোস্ত ৮০০ টাকা কেজি ক্রয় করতে অভ্যস্ত। কিন্তু কখনো কি পানির কেজিও …

Leave a Reply