ঢাবি ঘ ইউনিটের প্রশ্নপত্র ফাঁস নাকি ডিজিটাল জালিয়াতি?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ‘ঘ’ ইউনিটের আজকের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে। যদিও কর্তৃপক্ষ এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন। শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এই ভর্তি পরীক্ষা বিশ্ববিদ্যালয় এবং ক্যাম্পাসের বাইরে মোট ৮১টি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে সকাল ১০টা ২৮ মিনিটে প্রশ্ন এবং সাথে উত্তরের ১৪ পৃষ্ঠা হাতে লেখা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে। সাংবাদিকরা সেগুলো নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর ও সহকারী অধ্যাপক সোহেল রানাকে দেখান। পরীক্ষা শেষে অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নের সাথে ফাঁস হওয়া প্রশ্ন হুবহু মিলে যায় বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঢাবি ঘ ইউনিটের প্রশ্নপত্র ফাঁস

প্রাপ্ত ডকুমেন্ট হিসেব করে জানা গেছে, ইংরেজিতে ১৭টি, বাংলায় ১৯টি এবং সাধারণ জ্ঞান ৩৬টি (আন্তর্জাতিক ২০টি, বাংলাদেশ ১৬টি) মোট ৭২টি প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। প্রক্টর দাবি করেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি, তবে ডিজিটাল জালিয়াতি হতে পারে বলে তিনি মনে করেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সেটি খতিয়ে দেখবে বলেও জানান তিনি।

ডিভাইস জালিয়াতির মাধ্যমে হোক বা অন্য কোন উপায়ে হোক , এই প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায়ভার ঢাবি প্রশাসনের উপরেই পরবে। গত বছরও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ ওঠেছিল। তখনও বিশ্ববিদ্যালয় এটাকে ডিজিটাল জালিয়াতি বলে আখ্যায়িত করে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছিল সেসময়। তবে এক বছর পেরিয়ে গেলেও তদন্ত কমিটি কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করে নি।

Check Also

খাসির গোস্তের কেজি ৮০০ টাকা আর পানির কেজিও ৮০০ টাকা

খাসির মাংসের কেজি ৮০০ টাকা আর পানির কেজিও ৮০০ টাকা ! ভিডিও

আমরা হয়তো খাসির গোস্ত ৮০০ টাকা কেজি ক্রয় করতে অভ্যস্ত। কিন্তু কখনো কি পানির কেজিও …

Leave a Reply