হঠাৎ করেই অস্ট্রেলিয়া দলে নিষিদ্ধ স্মিথ-ওয়ার্নার!

স্মিথ-ওয়ার্নার এর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ এখনো শেষ হয়নি। শেষ হবে আগামী ২৯ মার্চ। কিন্তু, তার আগেই অস্ট্রেলিয়া দলে ফিরলেন সাবেক অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার।

এই ফেরাটা আক্ষরিক অর্থে ফেরা নয়। নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ থাকতেই তাদের দলে ডাকেননি অস্ট্রেলিয়ার কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার। এই ফেরাটা অস্ট্রেলিয়া দলের সঙ্গে স্মিথ-ওয়ার্নারের সৌজন্য সাক্ষাতের।

সামনেই ওয়ানডে বিশ্বকাপ। তার আগে দলের সঙ্গে নিষিদ্ধ স্মিথ-ওয়ার্নারের সম্পর্কের বাঁধনটা শক্ত করতেই বিশেষ এই আয়োজন করেছেন ল্যাঙ্গার। পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল এখন সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে। সেখানেই দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন স্মিথ-ওয়ার্নার।

তা সম্পর্কের বাঁধন শক্ত করতে ‘বুকে বুক মিলানো’র এই কর্মসূচিটা সফলই। দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দিয়ে সাবেক সতীর্থদের কাছ থেকে উষ্ণ অভ্যর্থনায় পেয়েছেন স্মিথ-ওয়ার্নার। দু’জনেই খুব খুশি। অবশ্য দলের সঙ্গে তারা খুব বেশি সময় থাকছেন না।

আগামী ২৩ মার্চ থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ভারতের প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ-আইপিএল। আইপিএলে খেলতে দুবাই থেকেই তারা চলে আসবেন ভারতে। অবশ্য আইপিএল থেকে সাময়িক ছুটি নিয়ে তাদের আবার দুবাইয়ে ফিরে যাওয়ার সম্ভাবনাও আছে। কারণ, পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের শেষ দুটি ওয়ানডেতে খেলার জন্য বিবেচিত হবেন তারা।

কারণ, ২৯ মার্চ তাদের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবে। পাকিস্তান সিরিজের শেষ দুটি ওয়ানডেও ২৯ ও ৩১ মার্চ। তবে, ওই দুটি ম্যাচের জন্য তাদের ডাকা হবে কিনা, সেই সিদ্ধান্ত নেবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)।

স্মিথ ও ওয়ার্নার দু’জনেই দু’মাস আগে অস্ত্রোপচার করিয়েছেন। এখনো পুরোপুরি সেরে উঠেননি। আইপিএলে খেলার মধ্যদিয়েই তাদের ফিটনেস যাচাই করবে সিএ। তবে, অস্ট্রেলিয়ার নির্বাচকরা ইঙ্গিত দিয়েছেন, শেষ দুটি ম্যাচের জন্য স্মিথ-ওয়ার্নারকে না ডাকার সম্ভাবনাই বেশি। তারা বরং আইপিএলেই যাতে পুরো মনোযোগ দিয়ে ফিটনেস ঘাটতিটা কাটিয়ে উঠতে পারে, সেই সুযোগই দিতে চায় অস্ট্রেলিয়ার নির্বাচকরা।

সেটা হলে স্মিথ-ওয়ার্নার আইপিএল শেষ করে মে মাসে সরাসরি যোগ দেবেন অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ ক্যাম্পে। তার আগেই কোচ ল্যাঙ্গারের আমন্ত্রণে ক্ষণিক সময়ের জন্য দলের সঙ্গে যোগ দিতে পেরে স্মিথ-ওয়ার্নার উচ্ছ্বসিত। দু’জনেই কণ্ঠ মিলিয়ে বলেছেন, কখনোই মনে হয়নি দলের বাইরে তারা!

দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারার প্রতিক্রিয়ায় ওয়ার্নার বলেছেন, ‘এটা ছিল অসাধারণ ব্যাপার। আমরা ১২ মাস দলের বাইরে। কিন্তু, মনে হয়েছে আমরা দল থেকে কখনোই দূরে ছিলাম না। দলেল সবাই আমাদের দারুণভাবে গ্রহণ করেছে। দেখেই বুকে জড়িয়ে নিয়েছে। কারো মধ্যে কোনো রকম সংকোচ ছিল না।’

স্মিথও একই সুরে বলেছেন, ‘দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারাটা অসাধারণ অভিজ্ঞতা। তারা আন্তরিকভাবেই আমাদের স্বাগত জানিয়েছে। আমার মনে হচ্ছিল, কখনোই তাদের ছেড়ে যাইনি। সবকিছুই ঠিক আছে।’

আনুষ্ঠানিকভাবে ফেরাটা যেহেতু এখন শুধুই সময়ের ব্যাপার, স্মিথ তাই দলের ভবিষ্যত পরিকল্পনার বিষয় নিয়েও কথা বলেছেন। জানিয়েছেন আসন্ন বিশ্বকাপ এবং অ্যাশেস সিরিজ নিয়ে নিজেদের ভাবনার কথাও।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন তারা।

Check Also

তামিম ইকবাল

মাশরাফির মনোনয়ন নিয়ে যা বললেন তামিম ইকবাল

রোববার (১১ নভেম্বর) সাংবাদিকদের সঙ্গে নিজের ইনজুরি নিয়ে কথা বলার সময় মাশরাফির নির্বাচনে অংশ নেয়ার …